বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী প্রোগ্রামের ভাষাকে পাঁচটি প্রজন্মে ভাগ করা যায়।

১। প্রথম প্রজন্মের ভাষা (১৯৪৫)ঃ মেশিন ভাষা (Machine language) – শুধুমাত্র ০, ১ ব্যবহার করা হয়।

২। দ্বিতীয় প্রজন্মের ভাষা (১৯৫০ )ঃ এসেম্বলি ভাষা (Assembly language) – এক সাংকেতিক ভাষাও বলা হয় । ০, ১ ব্যবহার না করে কতগুলো বিটের সমন্বয়ে গঠিত ইংরেজী বর্ণের সাহায্যে বিশেষ কোডে বা সংকেতে কম্পিউটারকে নির্দেশ দেওয়া হয়। যেমনঃ ADD, SUB, MUL, DIV .

এসেম্বলি ভাষায় চারটি অংশ থাকে।

ক। লেভেল

খ। অপকোড

গ। অপারেন্ড

ঘ। কমেন্ট

৩। তৃতীয় প্রজন্মের ভাষা (১৯৬০ )ঃ উচ্চতর ভাষা (High level language)। যেমন C , C++, Visual Basic, Java, Oracle, Algol, Fortran, Python

৪। চতুর্থ প্রজন্মের ভাষা (১৯৭০ )ঃ অতি উচ্চতর ভাষা (Very high level language)। যেমনঃ SQL , Oracle, Visual basic, NOMAD, RPG III, Focus, Intellect BPM ইত্যাদি।

৫। পঞ্চম প্রজন্মের ভাষা (১৯৮০ )ঃ স্বাভাবিক বা ন্যাচারাল ভাষা (Natural language)। যেমনঃ Prolog, OPS5, Mercurry ইত্যাদি।

প্রোগ্রাম তৈরির ধাপঃ Steps of Developing a Program

  1. সমস্যা নির্দিষ্টকরণ (Problem Specification)
  2. সমস্যা বিশ্লেষণ (Problem Analysis)
  3. প্রোগ্রাম ডিজাইন (Program Design)
  4. প্রোগ্রাম উন্নয়ন (Program Development)
  5. প্রোগ্রাম বাস্তবায়ন (Program Implementation)
  6. ডকুমেন্টেশন (Documentation)
  7. প্রোগ্রাম রক্ষণাবেক্ষণ(Program Maintenance)

প্রোগ্রাম তৈরির মূলধাপ সমূহঃ

১। যে সমস্যাটি সমাধান করা হবে, সেটিকে ঠিকভাবে বর্ণনা করা।

২। সমস্যার সমাধানের জন্য অ্যালগরিদম ও ফ্লোচার্ট তৈরি করা।

৩। কোড লেখা

৪। প্রোগ্রাম পরীক্ষা করা ও ভুল থাকলে ডিবাগ কড়ে প্রোগ্রাম সংশোধন করা

৫। প্রোগ্রাম রিলিজ করা।

সিস্টেম ফ্লোচার্ট

প্রোগ্রাম ফ্লোচার্ট